আজ রবিবার, ২১ Jul ২০১৯, ১০:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
«» ডেঙ্গুতে বিভিন্ন জেলায় বহু মানুষ আক্রান্ত «» সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রতিদিন ভর্তি হচ্ছে অর্ধশত ডেঙ্গু রোগী «» ডেঙ্গু প্রতিরোধে সিটি কর্পোরেশন সমীপে কিছু কথা «» সিজারে নবজাতকের মৃত্যুর গুজব: কী ঘটেছিল সেদিন? «» কমিউনিটি ক্লিনিকে আপনাকে স্বাগতম! দুঃখিত, এখানে কোন ডাক্তার নেই! «» গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ফেলা রাখা শিশুর দায়িত্ব নিল “চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার” «» সেই ওসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বাস্থ্য মহাপরিচালকের সুপারিশ «» ভুটানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগে আবেদন আহ্বান «» ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসকের মায়ের মৃত্যু «» স্বাস্থ্য অধিদপ্তরই যেন মশা উৎপাদনের কারখানা

এক চিকিৎসকের পিতা টাকার অঙ্কে জানালেন, সন্তানকে ডাক্তার বানাতে কত খরচ হয়েছে

এক চিকিৎসকের পিতা টাকার অঙ্কে জানালেন, সন্তানকে ডাক্তার বানাতে কত খরচ হয়েছে । এই পিতা নিজেও একজন প্রখ্যাত প্রকৌশলী উদ্যোক্তা। তার নাম প্রকৌশলী সরদার আমিন। বাংলাদেশের একজন প্রথিতযশ লেখক তিনি। তার এই লেখা শেষ কথা নয়। এ লেখা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। থাকতে পারে দ্বিমত। তবে তিনি আঙ্কিক নানা স্তরের হিসাব দিয়েছেন। এক পর্যায়ে পিতা অভিভাবক হিসেবে প্রশ্ন করেছেন: ‌ এই হিসাবে কোন ভুল আছে ?
এখানে লেখক প্রকৌশলী সরদার আমিনের লেখাটি প্রকাশ করা হল।

একজন ডাক্তার হ‌তে কত টাকা ব্যয় হয়?/ সরদার আমিন

এ‌দে‌শে প্রাই‌ভেট মে‌ডিক্যা‌লে ভ‌র্তি‌তে ২৫ লাখ, তারপর প্র‌তিমা‌সে গ‌ড়ে ৩০ হাজার ক‌রে বছ‌রে কম‌বে‌শি ৪ লাখ মা‌নে বইপত্রসহ অা‌রো ২৫ লাখ, তাহ‌লে মোট ৫০ লাখ টাকা ব্যয় হয়।

সরকারী মে‌ডিক্যা‌লে অামার মে‌য়ে‌কে পড়া‌তে লাখ পা‌ঁচেকের বে‌শি ব্যয় হয়‌নি। বাকী ৪৫ লাখ জনগ‌ণের টাকায় অামার মে‌য়ে ডাক্তার হ‌য়ে‌ছে। এটা প্র‌তিটা ডাক্তার যারা সরকারী মে‌ডিক্যাল ক‌লে‌জের তারা স্মরণ রাখ‌তে হ‌বে ও জনগ‌ণের প্র‌তি দা‌য়িত্ব পালন কর‌তে হ‌বে। যারা নি‌জের টাকায় প‌ড়ে‌ছে তারা কি কর‌বে?

আমার মে‌য়ে উচ্চতর ডিগ্রী কর‌তে সরকার প্র‌তি মা‌সে ছয় বছর যাবৎ দি‌য়ে‌ছে মা‌সে ২০,০০০ ক‌রে ১৪,৪০,০০০ টাকা। এটা জনগ‌ণের টাকা। সে হস‌পিটা‌লে জনগণ‌কে সা‌র্ভিস দি‌ছে ২০ হাজার টাকার বি‌নিম‌য়ে মা‌সে ৬০,০০০ টাকার মা‌নে ছয় বছ‌রে ৪৩,২০,০০০ টাকার। এটা তার পেছ‌নে গাড়ীর খরচসহ অন্যান্য ব্যয়। এটা অা‌রেকটু বে‌শি হ‌বে তার নি‌জের নানা ব্যয়, সেটা ধরলে অা‌রো ৩ লাখ ৮০ হাজার। মোট ৪৭ লাখ টাকা।

তাহ‌লে উচ্চতর ডিগ্রী কর‌তে গি‌য়ে জনগ‌ণের টাকা প‌রি‌শোধ হ‌য়ে গে‌ছে ম‌নে হ‌বে অাস‌লে সে ডিগ্রী কর‌তে সরকা‌রের স্থাপনা, শিক্ষক‌দের ব্যয় প্রাই‌ভে‌টে হ‌লে উ‌ল্টো অা‌রো ৩০ লাখ ব্যয় হ‌তো। তাহ‌লে শোধ হ‌লো ব‌লে ম‌নে হ‌লেও জনগ‌ণের কা‌ছে ঋ‌ণি অা‌রো ২৮ লাখ টাকা। ত‌বে উচ্চতর ডিগ্রী করার পর ঋণ ক‌মে যায়। ফি বে‌শি নি‌তে পা‌রে না অন্তত ৫ বছর।

মা‌নে সরকারী মে‌ডিক্যাল ক‌লেজ থে‌কে এম‌বি‌বিএস ডাক্তাররা জনগ‌ণের কা‌ছে ৪৫ লাখ টাকা ঋ‌ণি, উচ্চতর ডিগ্রী (এম‌ডি রে‌সি‌ডে‌ন্সি – চান্স পায় খুব কম) কর‌লে তা শোধ হ‌য়ে ঋ‌ণি হয় ২৮ লাখ। সুতরাং সাধারণ এম‌বি‌বিএস তৈরী‌তে সরকারী ব্যয় ৪৫ লাখ, অ‌ভিবাব‌কের ব্যয় ৫ লাখ। ৫০ লাখ। উচ্চতর এম‌ডি ডিগ্রী নি‌তে সরকারী ব্যয় ৪৪ লাখ ৪০ হাজার, অ‌ভিবাব‌কের বয়সহ ১ কো‌টি ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা। একজন এম‌বি‌বিএস ও এম‌ডি করার ব্যয় ১ কো‌টি ৫১ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

‌কোন ভুল আছে ?

অামার মে‌য়ে মান‌বে কি না অামার জানা নেই। কারণ সাধারণ প‌ড়ে বি‌সিএস দি‌য়ে সরকারী জব কর‌লে তার প্রচন্ড কষ্ট (সে ব‌লে বুঝা‌নো যা‌বে না) হ‌তো না যার মুল্য কো‌টি কো‌টি টাকা। সেটার বি‌নিম‌য়ে সে কি পা‌বে?

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :