আজ মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০১৯, ০৩:০২ অপরাহ্ন

নারী চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকির ঘটনায় অবশেষে মামলা

প্রকাশ্যে নারী চিকিৎসককে হত্যার হুমকি দেয়ার চারদিন পর অবশেষে অভিযুক্ত সারোয়ার হোসেনের নামে মামলা গ্রহণ করেছেন সিলেট নগরীর কোতোয়ালি থানা পুলিশ। সোমবার রাতে দায়ের করেন ওই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ফেরদৌস হাসান। অভিযুক্ত সারোয়ার হোসেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগ সহসভাপতি। একই মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৮/১০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিঞা বলেন, হত্যার হুমকির বিষয়ে মামলা হয়েছে। পরবর্তীতে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে গত শনিবার (১১ মে) বিকালে ওই ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছিলেন ফেরদৌস হাসান।

এদিকে কর্মস্থলে চিকিৎসকদের নিরাপত্তা ও অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। ওই দাবিতে গত শনিবার থেকে কর্মবিরতি শুরু করেন তাঁরা।

এরআগে, সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তারের দাবি জানান ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

এই সংবাদ সম্মেলনের পর রাতে মামলা করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে মামলার বাদি ফেরদৌস হাসান বলেন, চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের দাবি জানানো হয়েছিল। আমরা মামলা করেছি। এখন পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকালে ১০-১৫ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী পেটের পীড়ায় ভোগা একজনকে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। রোগীর সঙ্গে একজন থেকে বাকিদের বাইরে যেতে বলেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে চিকিৎসকের ওপর চড়াও হন অভিযুক্তরা।

এসময় দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন এক নারী চিকিৎসককে ছুরি প্রদর্শন করে হত্যা ও ধর্ষণের হুমকি দেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :