আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
«» “একজন স্বেচ্ছাসেবী,নিয়মিত রক্তদাতা সাদিয়া ক্যান্সারে আক্রান্ত, আর্থিক ভাবে সকলেই এগিয়ে আসুন”  «» ইউনানী/হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার-ফার্মাসিস্ট সহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে বিশাল নিয়োগ «» ঢামেকে ব্রাদার ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের সংঘর্ষে আহত ২৫ «» আগামী সাতদিন খুবই চ্যালেঞ্জিং : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর «» বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থোপেডিক হাসপাতাল নিটোরের গল্প «» শুকরের চর্বিতে উৎপাদিত তেলে আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের হৃদপিণ্ড! «» প্রাকৃতিক উপায়ে এডিস মশা থেকে মুক্তির উপায় «» ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত নতুন রোগী প্রায় ২ হাজার «» স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরেই হয়েছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী «» এবার ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসক লাঞ্ছিত

রক্তচাপের দিকে খেয়াল রাখুন, স্ট্রোক প্রতিরোধ করুন

স্ট্রোক খুবই পরিচিত অসুখ। প্রতিদিনই কেউ না কেউ স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছে। অনেকে মারাও যাচ্ছেন। ব্রেনের ভেতর রক্তপাত হয়ে বা রক্তপ্রবাহ বন্ধ হলে দেখা দেয় স্ট্রোক। ব্রেনের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন কাজ করে। যে অংশে ক্ষতি হয় সে অংশের কাজ নষ্ট হয় বা কমে যায়। ফলে একদিক অবশ হয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে স্মৃতিশক্তি এবং কথা বলাতে সমস্যা দেখা যায়।

স্ট্রোকের অন্যতম রিস্ক ফ্যাক্টর উচ্চ রক্তচাপ। উচ্চ রক্তচাপ নীরব ঘাতক। কারণ তেমন কোন লক্ষণ থাকেনা। নীরবে শরীরের ক্ষতি করতে থাকে। অনেকেই নিজের অজান্তেই বয়ে নিয়ে বেড়ান উচ্চ রক্তচাপ অসুখ। অনেকে আবার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এলে ওষুধ বন্ধ করে দেন। কেউ কেউ আবার রক্তচাপ উঠলে ঔষুধ ঘান। এসব কারনেই ঘটে বিপত্তি। হয় স্ট্রোক।

সবার নিয়মিত হেলথ চেকআপের মধ্যে থাকা উচিত। যাদের উচ্চ রক্তচাপ আছে তাদের নিয়মিত রক্তচাপ মাপতে হবে। তবে যেকোন জায়গায় মাপা যাবেনা। অবশ্যই যোগ্য চিকিৎসনকের কাছে থেকে মাপাতে হবে। নিয়মিত উচ্চ রক্তচাপের ঔষুধ খেতে হবে।

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনভাবেই ওষুধ বন্ধ করা যাবেনা। নিয়মিত ব্যয়াম করতে হবে। তেল চর্বি বর্জন করতে ফলমূল ও শাকসবজি বেশী করে খেতে হবে। ধূমপান ও মদপান একেবারেই বন্ধ করতে হবে।

স্ট্রোক হলে কষ্টের সীমা পরিসীমা থাকেনা। নানারকম জটিলতাও হয় স্ট্রোক থেকে। তাই যাতে স্ট্রোক না হয় সেদিকেই দৃষ্টি দেয়া দরকার। যেহেতু স্ট্রোকের অন্যতম প্রধান রিস্ক ফ্যাক্টর স্ট্রোক তাই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতেই হবে। বিষয়টি যেহেতু হাতের নাগালের মধ্যে তাই সবাইকে সচেতন হতেই হবে।

ডা. মো. ফজলুল কবির পাভেল

সহকারী সার্জন, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :