আজ রবিবার, ২১ Jul ২০১৯, ১০:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
«» ডেঙ্গুতে বিভিন্ন জেলায় বহু মানুষ আক্রান্ত «» সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রতিদিন ভর্তি হচ্ছে অর্ধশত ডেঙ্গু রোগী «» ডেঙ্গু প্রতিরোধে সিটি কর্পোরেশন সমীপে কিছু কথা «» সিজারে নবজাতকের মৃত্যুর গুজব: কী ঘটেছিল সেদিন? «» কমিউনিটি ক্লিনিকে আপনাকে স্বাগতম! দুঃখিত, এখানে কোন ডাক্তার নেই! «» গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ফেলা রাখা শিশুর দায়িত্ব নিল “চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার” «» সেই ওসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বাস্থ্য মহাপরিচালকের সুপারিশ «» ভুটানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগে আবেদন আহ্বান «» ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসকের মায়ের মৃত্যু «» স্বাস্থ্য অধিদপ্তরই যেন মশা উৎপাদনের কারখানা

প্রবাসী স্বামী হাসপাতালে, প্রেমিকের সঙ্গে উধাও স্ত্রী

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলার কারিকর ডাঙ্গী গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী ইউসুফ প্রামাণিক (৩৫) তার সাত বছর বয়সী ছেলেকে ফিরে পেতে চান। ছেলেকে ফিরে পেতে তিনি স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকদের দ্বারস্থ হয়েছেন।

বুধবার দুপুরে চরভদ্রাসন উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বাহরাইন প্রবাসী ইউসুফ প্রামাণিক বলেন, ছেলেকে ফিরে পেতে আপনাদের সহযোগিতা চাই। গত ২৫ দিন ছেলেকে দেখি না। ছেলে কোথায় আছে জানি না। আমার ছেলেকে এনে দেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ইউসুফ প্রামাণিক বাহরাইনে চাকরি করার সুযোগে তার স্ত্রী চম্পা খাতুন (৩২) আপন খালাতো ভাই শেখ রুবেলের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দুই বছর যাবৎ তারা মেলামেশা করে আসছে। প্রায় আড়াই মাস আগে স্বামী ইউসুফ প্রামাণিক ছুটিতে বাড়ি ফিরে আসেন। বাড়িতে এসে স্ত্রীর পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পারেন এবং স্ত্রীকে কড়া শাসনের মধ্যে রাখেন।

গত ১৫ জুন দিবাগত গভীর রাতে স্ত্রী চম্পা খাতুন হঠাৎ বিছানা থেকে উঠে ঘরের দরজা খুলে দেয়। এ সময় পরকীয়া প্রেমিক শেখ রুবেল হাতে ধারালো ছুরি নিয়ে ঘরে ঢুকে ইউসুফের গলা বরাবর কুপিয়ে জখম করে। পুনরায় আঘাত করতে গেলে উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এ সময় ইউসুফের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এলে পরকীয়া প্রেমিক রুবেল দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে আহত ইউসুফকে প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকার পর এখন তিনি কিছুটা সুস্থ।

এদিকে ইউসুফ যখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তখন স্ত্রী চম্পা খাতুন সাত বছর বয়সী শিশুপুত্র ওমর ফারুককে সঙ্গে নিয়ে পরকীয়া প্রেমিক রুবেলের হাত ধরে উধাও হয়ে যায়। ২৪ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ইউসুফ বাড়িতে এসে স্ত্রী চম্পা খাতুন ও শিশু পুত্র ওমর ফারুককে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন।

প্রবাসী ইউসুফ প্রামাণিক বলেন, বাহরাইন দেশে পাঁচ বছর চাকরীকালীন সময়ে যা রোজগার করেছি সব টাকা স্ত্রীর নামের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠিয়েছি। এমনকি তার জন্য আলাদা বাড়ি করে দিয়েছি। সে যা বলেছে আমি তাই করেছি। কিন্তু সে আমার সঙ্গে কি করলো?

তিনি বলেন, যে স্ত্রী তার স্বামীকে হত্যার চেষ্টা করে সেই স্ত্রী আমার দরকার নেই। ওর মতো স্ত্রীর সঙ্গে আমি সংসার করতে চাই না। আমি আমার শিশু পুত্রকে ফিরে পেতে চাই। এ ব্যাপারে চরভদ্রাসন থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চরভদ্রাসন থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) শাহীনুর রহমান জানান, নিখোঁজ পরকীয়া প্রেমিক যুগলকে গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তারা এলাকায় নেই, সম্ভবত ঢাকায় অবস্থান করছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :