আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
«» “একজন স্বেচ্ছাসেবী,নিয়মিত রক্তদাতা সাদিয়া ক্যান্সারে আক্রান্ত, আর্থিক ভাবে সকলেই এগিয়ে আসুন”  «» ইউনানী/হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার-ফার্মাসিস্ট সহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে বিশাল নিয়োগ «» ঢামেকে ব্রাদার ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের সংঘর্ষে আহত ২৫ «» আগামী সাতদিন খুবই চ্যালেঞ্জিং : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর «» বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থোপেডিক হাসপাতাল নিটোরের গল্প «» শুকরের চর্বিতে উৎপাদিত তেলে আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের হৃদপিণ্ড! «» প্রাকৃতিক উপায়ে এডিস মশা থেকে মুক্তির উপায় «» ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত নতুন রোগী প্রায় ২ হাজার «» স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরেই হয়েছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী «» এবার ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসক লাঞ্ছিত

খিদে পেলেই খেতেন সোনার গয়না-কয়েন!

সাধারণত মানুষ খিতে পেলে খাবার খাবে এটাই প্রকৃতির নিয়ম। কিন্তু সেই খাবার যদি হয় সোনার গয়না, কয়েন? হ্যাঁ, অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলায়। যা চিকিৎসকরা একঘন্টা ১৫ মিনিট ধরে অস্ত্রোপচার করে বের করে।

অদ্ভুত স্বভাবের ২২ বছর বয়সের ওই নারীর নাম রুনি খাতুন। তিনি জেলার মাড়গ্রামের কানাইপুরের বাসিন্দা। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদ সংস্থা জি নিউজ।

অস্ত্রোপচার করে রোগীর পাকস্থলী থেকে ৬০টি কয়েনসহ সোনার বালা, আংটি, কানের দুল, চেন, ঘড়ি, নাকের নথ, পায়ের নূপুর প্রভৃতি। দীর্ঘ অস্ত্রোপচারের পর ওই নারীর পেট থেকে ১ কেজি ৬৪০ গ্রাম গয়না বের করেন বীরভূমের রামপুরহাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের চিকিৎসকেরা। বমি ও পেটের যন্ত্রণা নিয়ে গত ৭ দিন আগে ওই হাসপাতালে ভর্তি হন রুনি খাতুন।

এ বিষয়ে রোগীর চিকিৎসক সিদ্ধার্থ বিশ্বাস জানান, এক্স-রে দেখে বোঝা যায় তার পেটে ধাতব কিছু রয়েছে। তাই অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি দল অস্ত্রোপচার শুরু করেন।

রোগীটির পরিবার জানায়, রুনি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলো। বাড়িতে মনোহরির দোকান রয়েছে। সেখান থেকেই কয়েন, বালা খেয়ে ফেলেছিলো সে। এছাড়া বাড়ির লোকজনের বিভিন্ন সোনার গয়না, ঘড়ি সব আস্ত খেয়ে ফেলে সে। খিদে পেলেই সে এসব খেয়ে ফেলত। আর সেগুলোই পাকস্থলীতে গিয়ে আটকেছিলো।

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :