আজ সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ০৯:৩২ পূর্বাহ্ন,

কে এই যুবক??? তার দাবি কিন্তু যৌক্তিক, পড়ুন বিস্তারিত…

বেশ কিছু দিন হলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। একজন যুবকের হাতে, শরীরে প্লেকার্ড লেখা কিছু যৌক্তিক দাবি তুলে ধরেছেন। তার সকল দাবি মানা হলে বাংলাদেশের চিকিৎসা পদ্ধতি আমুল পরিবর্তন হতো। ঢাকার রাস্তাঘাটে কে কখন এমন দাবি করেছেন বলা বাহুল্য। তিনি তবু এমন করে দাবি আদায়ে নেমেছেন। তার নাম পরিচয় জানা যায়নি তবে জানার চেষ্টা চলছে। তাকে খুঁজে পেলে ভালই হতো।
তার দাবি গুলো তুলে ধরছি যৌক্তিক প্রমান সহ..
১. হে ডাক্তার অস্পষ্ট প্রেসক্রিপশন বেশিরভাগ মানুষ বুঝে না, স্পষ্ট প্রেসক্রিপশন চাই। ডাক্তার সাহেবরা সকল প্রেসক্রিপশন লেখেন রোগীর রোগ নিরাময়ের জন্য। কিন্তু অনেক সময় হিতে বিপরীত হয়।তাড়াতাড়ি লেখার কারনে ঔষধের নাম ভূল বা অস্পষ্ট হয়ে যায়। সে কারনে ফার্মেসিতে ঔষধের নাম না বুঝে ভূল ঔষধ দিয়ে দেন।এতে অনেকে মারা গিয়েছেন এবংঅনেক রোগী ক্ষতির মুখে পড়েছেন। কিছু দিন আগেই তো অস্পষ্ট প্রেসক্রিপশন না লেখার জন্য মহামান্য আদালতে রায়ও দিয়েছেন।
২. টেস্ট বাণিজ্য বন্ধ করুন।
মেডিকেলে টেস্ট বাণিজ্য একটা হুমকি। রোগীর সাধারন চিকিৎসা না দিয়েই অনেক ডাক্তার পরীক্ষানীরিক্ষা ছাড়া কোন ঔষধই লিখেন না।মোটা অংকের টেস্ট দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন কয়েক হাজার টাকা। যাকে নাম দেওয়া হয়েছে ছি এ।এসব ছি এ নেওয়া বন্ধ হলে রোগীর চিকিৎসা ব্যায় অনেক কমে যাবে। সরকারি ডাক্তার সাহেবরা বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতাল থেকে কমিশন নিয়ে থাকেন। এসব কমিশন বাণিজ্য বন্ধ হলে রোগীর চিকিৎসা ব্যায় ৪০% শতাংশ কমে যাবে। এমনটাই বলেছেন ডা: প্রাণ গোপাল দত্ত।পরিশেষে একটাই কথা, ভাল চিকিৎসক হওয়ার আগে ভাল মানুষ হওয়া জুরুরি বলেছেন ডা: এম আর খান।

আরও পড়ুন :  ডিম নিয়ে মজাদার তথ্য

আপনার মন্তব্য লিখুন :

আরও পড়ুন :

সংবাদটি শেয়ার করুন :