,
শিরোনাম :
«» এ্যালাইড হেলথ্ প্রফেশনাল শিক্ষা বোর্ডের বিরুদ্ধে ডিমান্ড অব জাস্টিস নোটিশ প্রেরণ «» আইএইচটি এবং ম্যাটস বোর্ড নিয়ে বিতর্ক! «» বেশীরভাগ ফার্মেসীতেই বিক্রি হচ্ছে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ «» গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন «» জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিজিওথেরাপি শাখার আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» ভুটানে বাংলাদেশি চিকিৎসক নিয়োগ : সমঝোতা স্মারক নবায়ন এপ্রিলে «» তুরস্কে ইউরোপের সর্ববৃহৎ হাসপাতাল, যা আছে তাতে «» প্রাইভেট প্রাকটিস : প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পরিবর্তনে আশাবাদী চিকিৎসকরা «» স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ব্যাপক রদবদল

ফিজিওথেরাপি চিকিৎসায় মহিলাদের ইউরিনারী ইনকন্টিনেন্স ভালো হয়:গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের যৌথ গবেষণা

ওমর ফারুক,গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং কানাডার আলাবার্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে ‘ম্যানেজিং ইউরিনারী ইনকন্টিনেন্স ইন ইল্ডার্লী ভিলেজ ওমেন ইন রুরাল বাংলাদেশঃ এ ক্লাস্টার র‌্যান্ডমাইজড ট্রায়াল অব এ কমিউনিটি এক্সারসাইজ-বেজড ইন্টারভেনশন’ শীর্ষক গবেষণাধর্মী সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ মার্চ) গুলশান-২ এর হোটেল লেকশোর লা ভিতা হলে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি অধ্যাপক আবুল কাসেম চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাওয়ার এন্ড পার্টিসিপেশান রিসার্স সেন্টার (পিপিআরসি) এর নির্বাহী সভাপতি ড. হোসেন জিল্লুর রহমান।

সেমিনারের শুরুতে গবেষণা ফলাফল উপস্থাপনা করেন কানাডার আলবার্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিভেনটিভ মেডিসিনের অধ্যাপক নিকোলা চেরী এবং জেরিয়েট্রিক মেডিসিন অধ্যাপক আদ্রিয়ান ওয়াগ। তারা বলেন-গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র ও আলবার্টা বিশ্ববিদ্যালয় এর যৌথ উদ্যোগে চার বছর মেয়াদী গবেষণা কাজটি সম্পন্ন হয়েছে। গবেষণাটি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এর কর্ম এলাকার গাইবান্ধা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, শেরপুর, পাবনা গাজীপুর ও ভোলা জেলার ৩২টি গ্রামের ৬০ থেকে ৭৫ বছর বয়সের প্রস্রাব ঝড়ে পড়ে এমন ৫৭৯ জন মহিলাকে নিয়ে করা হয়। প্রথম তিন মাস ফিজিওথেরাপিস্ট এর মাধ্যমে তাদের গ্রামের মধ্যে একটি স্থান নির্ধারণ করে ফিজিওথেরাপি করানো হয়। পরবর্তী তিনমাস তারা নিজেরা ফিজিওথেরাপি করে। এই ফিজিওথেরাপী নিয়মিত করায় ৪১% মহিলাদের প্রস্রাব ঝড়ে পড়ার প্রবণতা সম্পূর্ণভাবে ভাল হয়ে যায় এবং বাকিদের কমে যায়।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের স্বাস্থ্য বিভাগের সিনিয়র পরিচালক এ কে এম রেজাউল হক বলেন, বর্তমানে যদি ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকদের তত্বাবধানে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা দেওয়া যায় তাহলে এর কর্মপরিধি বিস্তৃত করা সম্ভব হবে এবং বেশিসংখ্যক দরিদ্র বয়স্ক মহিলাদের সেবা দেয়া সম্ভব হবে। এরপর গবেষণা ফলাফলের উপর আলোচনা করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ্ চৌধুরী, অবসটেট্রিক্যাল এন্ড গাইনোকোলজিক্যাল সোসাইটি বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক সায়েবা আক্তার, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. কাওছার আফসানা, গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (চলতি দায়িত্ব) ডা. লায়লা পারভীন বানু।

আরও পড়ুন :  ‘লিভার ফেইলিয়র’ চিকিৎসায় দেশীয় চিকিৎসকদের সাফল্য

প্রধান অতিথি পাওয়ার এন্ড পার্টিসিপেশান রিসার্স সেন্টার (পিপিআরসি) এর নির্বাহী সভাপতি ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন- মহিলাদের প্রস্রাব ঝড়ে পড়া সমস্যা বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে একটি বড় ধরণের সমস্যা এবং এ সমস্যা সম্পর্কে অবশ্যই জনগণকে জানাতে হবে এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে এ সমস্যা সমাধান করার বিয়টি সম্পর্কেও জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে। তিনি আরো বলেন এ গবেষণার মাধ্যমে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ হয়েছে, যে কোন সমস্যার সমাধানে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ কাজের মাধ্যমে ফিজিওথেরাপিস্ট ও প্যারামেডিকসদের সেবাদানের নতুন দ্বার উন্মোচিত হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আরও পড়ুন :

সংবাদটি শেয়ার করুন :

Ad
Ad