আজ সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন,

বিএমডিসি নিবন্ধিত ডিপ্লোমাধারীদের ডিপ্লোমা চিকিৎসক মানতেই হবে

ডা. এম. মিজানুর রহমান :

বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল নিবন্ধিত ‘ডিএমএফ’ ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারী মেডিকেল এ্যাসিসট্যান্ট প্র্যাকটিশনার-ডিপ্লোমা চিকিৎসক যদি চিকিৎসক টাইটেল বা উপাধি ব্যবহার করতে না পারেন, তাহলে সেটা বাংলাদেশ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারী কাউন্সিল এ্যাক্ট, বাংলাদেশ ফার্মেসি কাউন্সিল এ্যাক্টের সাথে সাংঘর্ষিক হবে। সেই সাথে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স, বাংলাদেশ ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স এর পরিপন্থীও হবে। কেননা, এখান থেকেও বিভিন্ন বিষয়ের উপর ডিপ্লোমা পেশাজীবীদের নিবন্ধন সনদ দেয়া হয়। এবংকি এটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ আইন সংবিধানের তৃতীয় ভাগ মৌলিক অধিকার অনুচ্ছেদ ২৬, ২৭, ২৯, ৩১, ৪০, ৪৪ এর সাথেও সাংঘর্ষিক হবে। এদিকে বিএমডিসি এ্যাক্ট’ ২০১০ বলেছে চিকিৎসা ও দন্ত চিকিৎসা বিদ্যায় ন্যূনতম ব্যাচেলর ডিগ্রি এমবিবিএস/ বিডিএস ব্যতীত অন্য কেউ ডাক্তার উপাধি ব্যবহার করতে পারবেন না (ধারা ২৯ এর উপধারা ১)। উল্লেখ্য, ধারা ২৯ এর উপধারা ১ এর বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে দুটি রিট মামলা হওয়ায় আদালত ডিপ্লোমা চিকিৎসকদের ডাক্তার উপাধি ব্যবহার করার অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দিয়েছেন। যদিও এ ধরনের মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল শিক্ষাগত যোগ্যতার মাপকাঠি ভিত্তিক চিকিৎসক উপাধি ব্যবহারের বিষয়ে পৃথিবীর কোনো দেশের মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল এ্যাক্টে উল্লেখ নেই। কাউন্সিল নিবন্ধিত সকল ক্যাটাগরির চিকিৎসককেই চিকিৎসক হিসেবে মানা হয়। স্তরভেদে ডিপ্লোমা চিকিৎসক, লাইসেন্সশিয়েট চিকিৎসক, মেম্বারশিয়েট চিকিৎসক, চিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে ধরা হয়। বাংলাদেশে অন্যরকম টি চলতে থাকলে ভবিষ্যতে কখনো হয়তো আইন করার জন্য দাবি উঠতে পারে, চিকিৎসা ও দন্ত চিকিৎসা বিদ্যায় মাস্টার্স সমমান ডিগ্রিধারী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ব্যতীত অন্য কেউ ডাক্তার টাইটেল বা উপাধি ব্যবহার করতে পারবেন না।

আজ বিএমডিসি কাউন্সিল বলছে, ডিপ্লোমা  চিকিৎসকরা অচিকিৎসক। কাল হয়তো নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারী কাউন্সিল বলবে ডিপ্লোমা নার্সরা, নার্স নয়; ডিপ্লোমা মিডওয়াইফরা, মিডওয়াইফ নয়। নার্স, মিডওয়াইফ উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি নার্সিং/ বিএসসি মিডওয়াইফারী সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। ফার্মেসি কাউন্সিল বলবে ডিপ্লোমা ফার্মাসিস্টরা, ফার্মাসিস্ট নয়। ফার্মাসিস্ট উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বি. ফার্ম সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। অপরপক্ষে হোমিওপ্যাথিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স, ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স বলবে ডিপ্লোমা হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক, ডিপ্লোমা ইউনানী চিকিৎসক, ডিপ্লোমা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকরা হোমিওপ্যাথিক, ইউনানী, আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক নয়। হোমিওপ্যাথিক, ইউনানী, আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকের টাইটেল বা উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম ব্যাচেলর (হোমিওপ্যাথিক, ইউনানী, আয়ুর্বেদিক) সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে।

এভাবে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়াররা, ইঞ্জিনিয়ার নয়। ইঞ্জিনিয়ার উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। ডিপ্লোমা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারের সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার, টেক্সটাইল  ইঞ্জিনিয়ার নয়। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। ডিপ্লোমা মেরিন ইঞ্জিনিয়ারের সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা মেরিন ইঞ্জিনিয়ার, মেরিন ইঞ্জিনিয়ার নয়। মেরিন ইঞ্জিনিয়ার উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। ডিপ্লোমা ফিজিওথেরাপিস্টের সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা ফিজিওথেরাপিস্টরা, ফিজিওথেরাপিস্ট নয়। ফিজিওথেরাপিস্ট উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি ফিজিওথেরাপি সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। মেডিকেল টেকনোলজিস্টের সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নয়। মেডিকেল টেকনোলজিস্ট উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি মেডিকেল টেকনোলজি সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। ডিপ্লোমা কৃষিবিদ সংজ্ঞাও পরিবর্তনের প্রশ্ন উঠবে যে ডিপ্লোমা কৃষিবিদরা, কৃষিবিদ নয়। কৃষিবিদ টাইটেল বা উপাধি ব্যবহার করার জন্য ন্যূনতম বিএসসি কৃষি সমমান ডিগ্রিধারী হতে হবে। সেই সাথে বিএমডিসি’র ন্যায় পরিবর্তন করতে হবে দেশের সকল সরকারি পেশাজীবী কাউন্সিলের ডিপ্লোমা প্রফেশনের সংজ্ঞা। বাংলাদেশ সহ বিশ্বের প্রতিটা দেশের সর্বোচ্চ আইন মহামান্য সংবিধানে লিপিবদ্ধ করতে হবে যে, ডিপ্লোমা ডিগ্রি কোনো প্রফেশনাল কোর্স নয়। ডিপ্লোমা ডিগ্রি করে কেউ প্রফেশনাল উপাধি ব্যবহার করতে পারবেন না। ডিপ্লোমা ডিগ্রি করে কেউ চাকরিতে প্রফেশনাল পদবীতে নিয়োগ পাবেন না। সারাবিশ্বের সকল প্রফেশনাল ডিপ্লোমা ডিগ্রি কোর্স বন্ধ করে দিতে হবে, প্রফেশনাল কোর্স চালু করতে হবে ন্যূনতম স্নাতক ডিগ্রি পর্যায় থেকে। আর সেটা কি অাদৌ সম্ভব? সম্ভব নয়। কেননা, প্রতিটা রাষ্ট্রের প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করেই প্রফেশনাল ডিপ্লোমা ডিগ্রি কোর্স প্রবর্তন করা হয়েছে। মোট কথা, কেউ একজন ব্যাচেলর ডিগ্রিধারী প্রফেশনাল ব্যক্তি ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারী প্রফেশনাল ব্যক্তিকে অস্বীকার করলে, অবশ্যই মাস্টার্স ডিগ্রিধারী প্রফেশনাল ব্যক্তিও কোনো না কোনো দিন ব্যাচেলর ডিগ্রিধারী প্রফেশনাল ব্যক্তিকে অস্বীকার করবে। এটাই নিয়মে পরিণত হবে।

আরও পড়ুন :  কিডনিতে রিং স্থাপনে শেবাচিমের চিকিৎসকের সাফল্য

সবশেষে বলতে চাই, যদি ডিপ্লোমা নার্স কে নার্স, ডিপ্লোমা মিডওয়াইফ কে মিডওয়াইফ, ডিপ্লোমা ফার্মাসিস্ট কে ফার্মাসিস্ট, ডিপ্লোমা মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, ডিপ্লোমা ফিজিওথেরাপিস্ট কে ফিজিওথেরাপিস্ট, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার কে ইঞ্জিনিয়ার, ডিপ্লোমা টেক্সটাইল  ইঞ্জিনিয়ার কে টেক্সটাইল  ইঞ্জিনিয়ার, ডিপ্লোমা মেরিন ইঞ্জিনিয়ার কে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার, ডিপ্লোমা কৃষিবিদ কে কৃষিবিদ, ডিপ্লোমা আইনজীবী( যুক্তরাজ্য) কে আইনজীবী, ডিপ্লোমা হোমিও চিকিৎসক কে হোমিও চিকিৎসক, ডিপ্লোমা ইউনানী চিকিৎসক কে ইউনানী চিকিৎসক, ডিপ্লোমা আয়ুর্বেদিক  চিকিৎসক কে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক, ডিপ্লোমা দন্ত চিকিৎসক কে অনুমোদিত দন্ত চিকিৎসক মানা হয় তবে বিএমডিসি নিবন্ধিত এ্যালোপ্যাথিক মেডিসিনের ডিপ্লোমাধারীকে ডিপ্লোমা ডাক্তার মানতেই হবে। এটা ভুলে গেলে চলবে না যে, অন্যান্য ডিপ্লোমাধারীরা যে সকল অধিকার পেয়েছে ডিপ্লোমা চিকিৎসকদের তা পাওয়া সাংবিধানিক মৌলিক অধিকার। ডিপ্লোমা চিকিৎসকদের তা অবশ্যই পেতে হবে, যে কোনো মূল্যে পেতে হবে।
জয় হউক বাংলার, জয় হউক ডিপ্লোমা চিকিৎসক জাতির। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

ডা. এম. মিজানুর রহমান
তথ্য, গবেষণা ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ সম্পাদক, বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ।

আপনার মন্তব্য লিখুন :

আরও পড়ুন :

সংবাদটি শেয়ার করুন :