আজ মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০২:১৫ পূর্বাহ্ন

মেডিকেল টেকনোলজিতে ভর্তি হোন জেনে বুঝে

রিপন সরকার পল্লব :

সরকারি ১৩ টি ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি তে ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স পরিচালনা করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার প্রথম শর্ত প্রার্থীকে অবশ্যই SSC তে সায়েন্স থেকে পাশ সহ জীববিজ্ঞান বাধ্যতামূলক থাকতে হবে। ফর্ম তোলার প্রাথমিক যোগ্যতা জিপিএ নূন্যতম ২.৫।

সরকারি প্রতিষ্ঠান সমূহঃ

ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, ঢাকা
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, রাজশাহী
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, বগুড়া
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, চট্টগ্রাম
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, বরিশাল
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, রংপুর
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, ঝিনাইদহ
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, সিলেট
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, সিরাজগঞ্জ
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, সাতক্ষীরা
→ শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, জামালপুর
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, গোপালগঞ্জ
ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, গাজীপুর।

এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতাভুক্ত আরোও প্রায় ৫০ এর অধিক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আছে।

এ বছর
ভর্তির আবেদন শুরুর তারিখঃ ২১/০৫/২০১৯
আবেদনের শেষ তারিখঃ ১৮/০৬/২০১৯
প্রবেশপত্র ডাউনলোডের শুরুর তারিখঃ ০৪/০৭/২০১৯
প্রবেশপত্র ডাউনলোডের শেষ তারিখঃ ০৯/০৭/২০১৯
পরীক্ষার তারিখঃ ১২/০৭/২০১৯ (শুক্রবার) সকালঃ ১০টা-১১টা।

এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে উল্লেখিত কোর্সটি Rules of Business Allocation এবং BMDC Act ভঙ্গ করে সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্রায় ৩৫০+ নিম্নমানের প্রতিষ্ঠানে SSC তে আর্টস,কমার্স, ভোকেশনাল ইত্যাদি সবধরনের ছাত্রছাত্রী ভর্তি করে নিম্নমানের কথিত মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট তৈরি করছে। ফলে একদিকে স্বাস্থ্যখাতে একধরনের অনিরাপদ পরিবেশ যেমন গড়ে উঠছে, তেমনি এসব নিম্নমানের প্রতিষ্ঠান থেকে পাশ করা মেডিকেল টেকনোলজিষ্টরা নিজেদের পরিচয় দিতেও লজ্জাবোধ করেন এবং অনেকক্ষেত্রেই মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে IHT র পরিচয় দিয়ে থাকেন।

সর্বশেষ কারিগরির এসব ছাত্রদের মামলার প্রেক্ষিতে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের আদেশ অনুযায়ী শুধুমাত্র SSC তে সায়েন্স যুক্ত প্রার্থীদের আদালত সরকারি চাকুরির পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান করেছেন। এবং কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের এই কোর্স শুধুমাত্র স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পরিচালনা করবে বলে নির্দেশ প্রদান করেছেন।

নতুন করে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড যতো কিছুই করুক না কেন তা আদালতের আদেশ বারংবার অমান্যকর বলেই গণ্য হবে।

সুতরাং আপনার সন্তান, ভাইবোন কিংবা প্রিয়জনকে কোনক্রমেই কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের নিম্নমানের মেডিকেল টেকনোলজি কোর্সে ভর্তি করাবেন না এবং তার ক্যারিয়ার নষ্ট ও দেশের মানুষের জীবনকে বিপদগ্রস্ত করবেন না। মেডিকেল টেকনোলজিতে পড়াতে চাইলে অবশ্যই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উল্লেখিত সরকারি ১৩ টি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তি করতে পারেন।

ধন্যবাদ। আপনাদের সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।

রিপন সরকার পল্লব
মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট।

আপনার মন্তব্য লিখুন :
সংবাদটি শেয়ার করুন :